রবিবার, মে ২২, ২০২২

বিনা টিকিটের যাত্রীদের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই: রেলমন্ত্রী

রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দিয়ে বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করার অপরাধে তিন যাত্রীকে জরিমানা করার জন্য রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরীক্ষককে (টিটিই) বরখাস্তের ঘটনা এখন আলোচিত। দেশজুড়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। এ ব্যাপারে

আজ শনিবার (৭ এপ্রিল) গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিনা টিকিটে ট্রেনে ভ্রমণ করা যাত্রীরা আমার আত্মীয় নয়, তাদের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই। মন্ত্রীর (আমার) নাম ভাঙিয়ে কেউ হয়তো সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করেছে। ঘটনার সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।’

এ ঘটনার কিছুই জানেন না দাবি করে মন্ত্রী বলেন, শনিবার সকালে ঘটনাটি শুনেছি। রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে শুনেছি ওই টিটিই বিনা টিকিটের যাত্রীদের সঙ্গে অত্যন্ত খারাপ আচরণ করেছেন।

ফলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, রেলের অফিসিয়াল কার্যক্রমের সঙ্গে মন্ত্রীর কোনো সংযোগ নেই। ঘটনার সঙ্গে মন্ত্রীর কোনো আত্মীয় জড়িত নন। রেল কর্মকর্তারা ওই টিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে কিছুই জানতেন না মন্ত্রী।
মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা রেলসেবা বাড়াতে কাজ করছি। বিনা টিকিটের যাত্রী যদি মন্ত্রীর আত্মীয়ও হয় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না। একইভাবে কোনো রেল কর্মকর্তাও যদি যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে তাকেও শাস্তি পেতে হবে। যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করার কারণে টিটিইর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ঈদের সরকারি ছুটির মধ্যে যে রাতে ওই যাত্রীদের সঙ্গে ‘অসদাচরণের’ ঘটনা ঘটেছে তার পরদিনই লিখিত অভিযোগ করেন ওই যাত্রীরা। এরপর টিটিইর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা (বরখাস্ত) নেওয়া হয়েছে। সাধারণ কোনো নাগরিকের অভিযোগে একজন সরকারি কর্মচারীকে এত দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার ঘটনা একেবারেই বিরল।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বাণিজ্যিক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন বলেন, লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে সুন্দরবন ট্রেনে বিনা টিকিটে ভ্রমণকারী তিন যাত্রীর সঙ্গে কর্তব্যরত টিটিই অসদাচরণ করেছেন বলে তারা রেলওয়ের মহাপরিচালকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোনে অভিযোগ দেন। বিষয়টি তাকেও অবহিত করা হয়। ওই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে টিটিই শফিকুল ইসলামকে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

ঘটনা সম্পর্কে শফিকুল ইসলাম বলেন, বরখাস্তের বিষয়টি তিনি ট্রেনে ডিউটিরত অবস্থায় মোবাইল ফোনে জানতে পারেন। সাময়িক বরখাস্ত হওয়ায় শুক্রবার থেকে তিনি ডিউটিতে যাচ্ছেন না।

টিটিই শফিকুল ইসলাম বলেন, ঈশ্বরদী থেকে অল্প বয়সী তিন ট্রেনযাত্রী রেলপথমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি কেবিনে ওঠেন। মন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেওয়ায় তিনি সম্মান দেখিয়ে এসিও’র পরামর্শে এসির টিকিট না কেটে সুলভ শ্রেণির নন-এসি কোচের টিকিটেই এসিতে বসতে দেন। তিনি তাদের সঙ্গে কোনো রকম অসদাচরণ করেননি বলে দাবি করেন।

দেশের পত্রিকাগুলোতে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, গত বুধবার (৪ মে) রাতে আন্তঃনগর ‘সুন্দরবন এক্সপ্রেস’ ট্রেনে তিনজন যাত্রী বিনা টিকিটে এসি কেবিনে ভ্রমণ করছিলেন। এ জন্য ওই তিনজন যাত্রীকে জরিমানা করেন কর্তব্যরত টিটিই। পরদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার (৫ মে) ওই টিটিইকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বিষয়টি নিয়ে দেশের সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে।



Comments are Closed

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: