বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

বেনাপোলে শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মদিন পালন

বেনাপোলে শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মদিন পালন

বেনাপোল প্রতিনিধি: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শেখ কামালের ৭৩ তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এ উপলক্ষে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। শুক্রবার বেলা ৫ টার সময় বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগ আয়োজিত, পৌর আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে জাতির জনক এর জ্যেস্ট পুত্র শেখ কামালের ৭৩ তম জন্ম বার্ষিকীতে বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোজাফফার হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্ঠা মন্ডলীর সদস্য আহসান উল্লাহ মাষ্টার। এসময় বক্তব্য রাখেন শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক ইলিয়াছ আযম, দপ্তর সম্পাদক আজিবর রহমান, পৌর আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরামের সভাপতি রহমত আলী, পৌর আওয়ামী যুবলীগের আহবায়ক সুকুমার দেবনাথ, বেনাপোল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আহসান কবির বাবু এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক খোদাবক্স, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শেখ সারোয়ার, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রহমান, বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগ নেতা মতিয়ার রহমান মধু, শার্শা উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিউটি খাতুন, আওয়ামী নেতা শুকুর আলী, ইসরাইল সরদার, আসাদুজ্জান আশা প্রমুখ। উপস্থিত বক্তারা বলেন ১৯৪৯ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। শিশু জীবনে শেখ কামাল শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে বিএ অনার্স পাস করেন। তিনি ছায়ানটের সেতার বাদন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’। শেখ কামাল ছিলেন ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। অভিনয় শিল্পী হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বাড়ি থেকে বের হয়ে তিনি সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্বপালন করেন। স্বাধীনতার পর শেখ কামাল সেনাবাহিনী থেকে অব্যাহতি নিয়ে লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করেন। শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় প্রচণ্ড উৎসাহ ছিল তার। তিনি উপমহাদেশের অন্যতম সেরা ক্রীড়া সংগঠন, বাংলাদেশে আধুনিক ফুটবলের প্রবর্তক আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।শেখ কামাল দেশের নান্দনিক ফুটবল ও ক্রিকেটসহ অন্যান্য দেশীয় খেলার মানোন্নয়নে অকান্ত শ্রম দিয়ে অপরিসীম অবদান রেখেছিলেন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগ সাংস্কৃতিক ফোরাম এর কার্যকরি সদস্য জাকির হোসেন আলম।



Comments are Closed

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: