শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

বেনাপোল বন্দরে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা “পার্সিমন” ফল জব্দ

মোঃ সাহিদুল ইসলাম শাহীনঃ-

শুল্ক ফাঁকির উদ্দেশ্যে আতা ফল আমদানির মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে আতা ফলের সঙ্গে মূল্যবান “পার্সিমন”(জাপানের জাতীয় ফল) ফল বেনাপোল বন্দরে এসে পৌছলে এবং তা খালাসের প্রস্তুতিকালে

গোপণ সংবাদ পেয়ে বেনাপোল কাষ্টমস কর্তৃপক্ষ তা জব্দ করে।

 

বেনাপোল কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, প্রভা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি আমদানী প্রতিষ্ঠান ২ হাজার ৭০০ কেজি আতা ফল আমদানির ঘোষণা দিয়ে আতা ফলের চালানের মধ্যে মূল্যবান “পার্সিমন” ফল নিয়ে আসে। এতে বিপুল পরিমাণ শুল্ক ফাঁকির অপচেষ্টা করা হয়। মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি পণ্যের চালানটি ক্লিয়ারিংয়ের দায়িত্বে ছিল বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট আমেনা এন্টার প্রাইজ।

 

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) রাতে বন্দরের ৩১নং ইয়ার্ড থেকে চালানটি জব্দ করে কাস্টমস। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট আমদানিকারক ও সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কাস্টমস আইনে মামলা ও জরিমানা করা হয়েছে।

 

বেনাপোল কাস্টমস হাউসের রাজস্ব কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাস্টমসের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে অভিযান চালিয়ে চালানটি জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় তদন্ত চলছে এবং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

অভিযুক্ত সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট আমেনা এন্টার প্রাইজের স্বত্বাধিকারী জানিয়েছেন, লাইসেন্সটি ভাড়া নিয়ে বেনাপোলের এক ব্যক্তি কাজ করেন। এসব বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না।

 

উল্লেখ্য, দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে আমদানির আড়ালে শুল্ক ফাঁকি চক্র দীর্ঘদিন ধরেই সক্রিয়। এমনই একটি চক্র সরকারি শুল্ক ফাঁকির উদ্দেশে আতা ফল আমদানির মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে আতা ফলের সঙ্গে মূল্যবান “পার্সিমন” ফল দেশে আনে। “পার্সিমন” হলো হলুদ, কমলা বা লাল রঙের

বিভিন্ন প্রজাতির একটি ভোজ্য মিষ্টি ফল। এটি অনেকটা টম্যাটোর আকারের। ১.৫ সেমি হতে ৯ সেমি (০.৫ থেকে ১৫ ইঞ্চি) বৃত্তাকার আকৃতির হয়ে থাকে। সারা বিশ্বে প্রায় ৭৫০ প্রজা‌তির পা‌র্সিমন উৎপা‌দিত হয়। অ‌ধিকাংশ পার্সিমনই বীজশূন্য। ত‌বে কিছু কিছু প্রজা‌তির এই ফল বীজযুক্ত হয়ে থাকে। উচ্চ পু‌ষ্টিমানে সমৃদ্ধ পার্সিমন ফলে প্রজা‌তিভেদে শর্করার প‌রিমাণ ১৯-৩৩%, হজম‌যোগ্য আঁশ ৪% ছাড়াও পর্যাপ্ত প‌রিমাণে বি‌ভিন্ন ধরনের ভিটা‌মিন এবং খ‌নিজ পদার্থ যেমন, পটাসিয়াম বিদ্যমান। চর্বির পরিমাণ নিতান্তই কম। ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস-এ ভরপুর ফলটি আলসার, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ এবং বার্ধক্য প্রতিরোধ সহ বহু রোগ নিরাময়ে সহায়তা করে। জাপানে ফলটি জাতীয় ফল হিসেবে স্বীকৃত।

 



Comments are Closed

error: Content is protected !!
%d bloggers like this: